২ ডিসেম্বর, ২০১৪ বেশতো ব্লগে প্রথম প্রকাশিত।

কিছুটা সম্পাদনের পর নিজ ব্লগে প্রকাশিত।

আপনি যখন শপিং মলে কিংবা বাজারে কিছু কিনতে যান, কেনার সময় আপনি কি করেন?

সামনে যা পান তাই কি কিনে নেন? নিশ্চয় না। আপনি যেটা করেন সেটা হলে দেখে শুনে ভাল জিনিসটাই আপনি পছন্দ করেন যেটা আপনার জন্য, আপনার পরিবারের জন্য ভাল, যা আপনার এবং আপনার পরিবারের রুচির সাথে যায়, যা আপনার পক্ষে কেনা সম্ভব তাই আপনি কেনেন। কেনার সময় আপনি চিন্তা ভাবনা করে রুচির পরিচয় দিয়ে কেনেন।

কিন্তু যখন সভ্য হয়ে উঠার জন্য আপনি অন্য দেশের সভ্যতাকে বিনা মূল্যে এই দেশে টেনে নিয়ে আসেন তখন কেন আপনি ভাবেন না? অন্য দেশের সভ্যতাকে নিজের দেশে টেনে নিয়ে আসার সময় আপনার রুচি বোধ কোথায় থাকে? তখন আপনার চিন্তা ভাবনা কোথায় থাকে? কেন মোহে অন্ধ হয়ে যান?

আপনি আপনার দেশের সভ্যতা সংস্কৃতিকে ঘৃণা করছেন এই বলে যে এগুলো সেকেলে, এগুলো অশিক্ষিতের কাজ। কিন্তু আপনিই আবার অন্য দেশের রাখালদের সভ্যতা সংস্কৃতিতে গলায় জড়িয়ে ধরে নিজ দেশে নিয়ে আসছেন!

আপনার কাছে মমতাজের ফাইট্টা যায় অসভ্য গান মনে হয়, কিন্তু শীলা আর মুন্নির জোয়ানী খুব করে টানে! আপনি আপনার পোষাকে যত খুশী তত ছোট করতে দ্বিধা করেন না। সেটাই আপনার কাছে জাতে উঠার পথ। কিন্তু এই দেশের ঢেকে চলা মেয়েগুলোকে আপনার গেয়ো ভূত মনে হয়। সেই আপনিই আবার পহেলা বৈশাখ আর পহেলা ফাল্গুনে একটা শাড়ির জন্য সে কি কান্না করেন। শাড়ি না পড়লে আপনার জাত চলে যাওয়ার মত অবস্থা হয়।

আপনি পেছন দিয়ে ঘোড়ার লেজের মত চুল বাড়িয়ে দিয়ে মজা পান। কিন্তু একবারও চিন্তা করেন না এটা আপনার প্রতি মানুষের ধারণাকে কোন দিকে নিয়ে যাচ্ছে। আপনি এই দেশের মোল্লাদের দাড়িকে ছাগইল্লা দাড়ি বলে হাসাহাসি করতে ছাড়েন না। কিন্তু কি অদ্ভুত! সেই আপনিই আবার অন্য দেশের গায়কদের মত থুতমির নিচে গোছা কয়েক দাড়ি রেখে কি ভাব মেরে চলছেন! যেন ভাবে মাটিতেই পা পড়ে না।

এই দেশের নাটকগুলোকে বাদ দেওয়ার জন্য আপনার জন্য এক বিজ্ঞাপনের ছুতাই যথেষ্ট। এর পর হা করে গিলতে থাকেন ভিনদেশী সিরিয়াল আর শিখতে থাকেন কি করে পরিবারের মাইরে বাপ করা যায়। এখনতো মনে হয় এই দেশে ভিনদেশী সিরিয়াল বন্ধ করে দিলে আপনারা রাস্তায় নামতে কুণ্ঠা করবেন না। কিন্তু দেশের নাটকে বিজ্ঞাপন কমিয়ে দেওয়ার জন্য আপনাদের একটু আওয়াজ তুলতেও কষ্ট হয়।

আপনার কি মনে হয় আপনার এই উদ্ভট আচরণ আপনাকে অনেক উপরে নিয়ে যাচ্ছে?

মনে রাখবেন, আগে সংস্কৃতি ছিল একটি জাতির পরিচয়! এখন সভ্যতা শুধু জাতির পরিচয়ই বহণ করে না, তা একটি অঞ্চল কিংবা একটি দেশের অর্থনীতির সাথে জড়িত, পর্যটনের সাথে জড়িত, বিশ্বায়নের সাথে জড়িত। নিজস্ব সংস্কৃত, ঐতিহ্যের গুরুত্ব বুঝতে না পারলে আপনি কখনো প্রকৃত অর্থে বড় হতে পারবেন না। পারবেন অন্যের অনুকরণের একটা পুতুল হয়ে থাকতে। আপনি নিজেকে অনেক বড় ভাবতে থাকবেন কিন্তু যাদের অনুকরণ করছেন তাদের কাছে আপনি ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা হয়ে থাকবেন? আশা করি “ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা” বলতে কি বুঝায় সেটা বুঝেন!

Advertisements