৩ অক্টোবর, ২০১৪ তারিখে বেশতো ব্লগে প্রথম প্রকাশিত।

বসেছিলাম নারায়ণগঞ্জ দুই নম্বর গেট সংলগ্ন ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের তিন তলায়। অফিসটার এই তলাটা বেশ ফাঁকাই মনে হল। অথচ নিচের তলায় মানুষের ভিরে আমার জন্য হাটাই দুষ্কর হয়ে গিয়েছিল।

আমি আর এক মামা সোফায় বসে কাজ শেষ হওয়ার অপেক্ষা করছি আর গল্প করছি। হঠাৎ খুব আস্তে করে কিছুর শব্দ হল। কোন রকম গুরুত্ব পাবার মত শব্দ না। কিন্তু একটু পর একটা প্রশ্ন শুনে আগ্রহ নিয়ে শব্দের উৎস খুঁজা শুরু করলাম। আমাদের সামনে থাকা কর্মকর্তা আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, “কিসের শব্দ হল? এটা কি আপনাদের ওখান থেকে হয়েছে?” আমি এদিক ওদিক তাকিয়ে বললাম, “না”। এ পর আমার পাশে বসা  মামার দিকে তাকালাম। তিনিও মাথা নেরে উত্তর দিলেন না শব্দটা আমাদের এখন থেকে হয়নি।

উত্তরের পর পরই সেই কর্মকর্তা তার সিট ছেড়ে উঠে এলেন এবং এদিক ওদিক তাকিয়েই বলতে থাকলেন, “আমার কেমন যেন মনে হল গুলির শব্দ”।

“গুলির!” আমি তার দিকে পূর্ণ দৃষ্টিতে তাকালাম এবং বুঝলাম সে দুষ্টমি করছে না।

পরে বেশ কিছুক্ষণ চিন্তা করে নিজেকেই প্রশ্ন করলাম এটা কি হল? এখানকার মানে নারায়ণগঞ্জের অবস্থা কি এমন যে গুলির শব্দ খুব বেশী বেশী শুনা যায়।

পরক্ষণেই মনে হল এই এলাকায় একজন ব্যক্তি আছেন যিনি খুব শান্ত শিষ্ট (!), ভদ্র(!), নিষ্পাপ(!), নিষ্কলঙ্ক(!) এবং মানবতার সেবায় সদা নিয়যিত। তিনি এই এলকার এমপিও! তার নাম শামিম ওসমান।

তার এলাকায় এগুলো হলেও হতে পারে! কি জানি! আমরা আম জনতা। আমাদের বেশী ভাবতে নেই।

Advertisements